মঙ্গলবার ২৬ জানুয়ারি ২০২১ ১৩ মাঘ ১৪২৭
শিরোনাম: জলবায়ুর ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্রহণে ব্যর্থতার জন্য অর্থ ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবই দায়ী : প্রধানমন্ত্রী       চীন ও ভারতের সৈন্যরা ‘নতুন করে সীমান্ত সংঘর্ষে’ জড়িয়েছে       ক্যারিবীয়দের ‘বাংলাওয়াশ’       সাইবার অপরাধীদের জন্য স্বর্ণখনি হয়ে উঠেছে গুগল ড্রাইভ       আইপিএলে নতুন ভূমিকায় সাঙ্গাকারা       পিকে হালদারের সহযোগী উজ্জ্বল ও রাশেদুল রিমান্ডে       ফখরুল ‘ডিমেনশিয়ায় আক্রান্ত কি-না’ সন্দেহ হাছান মাহমুদের      
চট্টগ্রাম জেলার ৪৬টি ইউনিয়নের গ্রাম আদালতে ৪২ মাসে ৬৯১৭টি মামলা নিস্পত্তি
রনজিত কুমার শীল, চট্টগ্রাম:
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১২ জানুয়ারি, ২০২১, ৯:৩৯ পিএম |

ন্যায়বিচার প্রাপ্তির অধিকার প্রত্যেক নাগরিকের মৌলিক অধিকার। আইনের দৃষ্টিতে প্রত্যেক নাগরিক সমান এবং আইনের সমান আশ্রয় লাভের অধিকারী। সমতার এই বিধান বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন সংবিধান কর্তৃক স্বীকৃত। বাংলাদেশে স্থানীয়ভাবে বিরোধ নিরসনের ইতিহাস অনেক পুরনো। প্রথাগতভাবে স্থানীয় জনগণ বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য জনপ্রতিনিধিদের দ্বারস্ত হয়। এই অভিজ্ঞতার সূত্র ধরে এবং সাংবিধানিক অঙ্গীকার অনুসরণ করে গ্রামীণ ছোট-খাট দেওয়ানী ও ফৌজদারী বিরোধ-বিবাদসমূহ দ্রুততম সময়ে স্বল্প ব্যয়ে খুব সহজে নিস্পত্তি করা করার জন্য ১৯৭৬ সালে গ্রাম আদালত অধ্যাদেশ এবং তদপরবর্তীতে গ্রাম আদালত আইন ২০০৬ (সংশোধন ২০১৩) ও গ্রাম আদালত বিধিমাল-২০১৬ প্রণয়ন করে।
বিচারিক সেবাকে সবার জন্য সহজগম্য করতে বাংলাদেশ সরকারের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় অ-আনুষ্ঠানিক ও আধা আনুষ্ঠানিক বিচারিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। স্থায়িত্বশীল উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার (এসডিজি) ১৬ নং লক্ষ্যেমাত্রায় সবার জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা এবং ৫নং লক্ষ্যেমাত্রায় জেন্ডার সমতা অর্জন করার কথা বলা হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীও সাধারণ জনগণের কাছে ন্যায়বিচারকে সহজ করতে এবং প্রচলিত আদালতের মামলার জট কমাতে গ্রাম আদালতকে কার্যকর করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার নিজেদের অর্থায়ন এবং  ইউএনডিপি, ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন এর আর্থিক ও কারিগরী  সহযোগিতায় স্থানীয় সরকার বিভাগের মাধ্যমে ৫ বছর মেয়াদী (২০১৬-২০২০) বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পটি দেশের ৮টি বিভাগের ২৭টি জেলার ১২৮টি উপজেলার  ১ হাজার ৮০ টি ইউনিয়নে বাস্তবায়ন করছে।
স্থানীয় সরকার, চট্টগ্রাম অফিস সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম জেলার ৫টি উপজেলার (সীতাকুন্ড, সন্দ্বীপ, ফটিকছড়ি, সাতকানিয়া ও লোহাগাড়া) ৪৬টি ইউনিয়নে বাংলাদেশে গ্রাম আদালত সক্রিয়করণ (২য় পর্যায়) প্রকল্পটি চলমান রয়েছে। চট্টগ্রাম জেলায় প্রকল্পের আওতায় গত সাড়ে তিন বছরে (জুলাই ২০১৭ থেকে ডিসেম্বর ২০২০) প্রকল্পভূক্ত ৪৬টি ইউনিয়নে সর্বমোট ৭ হাজার ১৯৯ (মাসিক গড় প্রতি ইউনিয়নে ৩.৭৩টি) মামলা গ্রহণ ৬ হাজার ৯১৭টি বিরোধ (৯৬.০৮%) নিস্পত্তি করা হয়েছে। নিস্পত্তিকৃত মামলাসমূহের মধ্যে ৪ হাজার ৭৫১টি (৬৮.৬৯%) মামলা গ্রাম আদালতের মাধ্যমে সুষ্ঠু সমাধান করা সম্ভব হয়েছে এবং অবশিষ্ট ২ হাজার ১৬৬টি (৩১.৩১%) মামলা বাতিল/খারিজ/আদেবন ফেরত প্রদান/উচ্চ আদালতে প্রেরণ দেয়া হয়েছে। গ্রাম আদালতের ৪ হাজার ৭৫১ সিদ্ধান্তের মধ্যে ৩৭২৯টি (৭৮.৪৯%) সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন হয়েছে। সাড়ে তিন বছরে ৫৭৩টি (৭.৯৬%) মামলা জেলা আদালত থেকে গ্রাম আদালতে বিচারের জন্য প্রেরণ করা হয়েছিল। গ্রাম আদালতে ২ হাজার ৫৫৩ জন নারী (৩৫.৪৬%) বিচার প্রার্থনা করেছেন এবং ৯৭৬ জন (১১.৯০%) নারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় বিচারিক প্যানেলে সদস্য ছিলেন। গত সাড়ে তিন বছরে ১৮৫ জন দলিত (হরিজন) ও ২৮ জন প্রতিবন্ধি ব্যক্তি গ্রাম আদালতের সেবা গ্রহণ করেছেন। এ পর্যন্ত ৭৫৬.৮৪ শতাংশ জমি উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে যার আনুমানিক মূল্য প্রায় ১ কোটি ৩৯ লক্ষ ৩৮ হাজার পাঁচশত টাকা। গত সাড়ে তিন বছরে প্রকল্পভূক্ত গ্রাম আদালতসমূহে সর্বমোট ৩ কোটি ৮১ লাখ ৭৫ হাজার ৪৬১ টাকা ক্ষতিপূরণ আদায় করে ক্ষতিগ্রস্থ পক্ষকে দিতে সক্ষম হয়েছে। এ সময়ে ইউনিয়ন পরিষদসমূহ ৮৮ হাজার ৬৪০ টাকা  ফি আদায় করেছে।
চট্টগ্রাম জেলার সকল ইউনিয়নে (১৯১টি) গ্রাম আদালতসমূহকে সক্রিয়ভাবে চলমান রাখার জন্য স্থানীয়ভাবে অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সকল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও সচিবদের গ্রাম আদালত বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় উপকরণ/সহায়িকা সরবরাহ করা হয়েছে। গ্রাম আদালতের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যন্ত বিচারিক সেবা পৌঁছে দিতে স্থানীয় পর্যায়ে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় ইউনিয়ন পরিষদসমূহকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদসমূহ নিয়মিত গ্রাম আদালত পরিচালনা করলে ছোট-খাট অভিযোগগুলো থানায় বা জেলা আদালতে দায়ের করার প্রয়োজন হবে না। এতে করে দেশের মূলধারার বিচারিক আদালতগুলোর মামলার জট অনেকাংশে হ্রাস পাবে।

এনএনবি নিউজ /ডিকে








সর্বশেষ সংবাদ
ইউল্যাবের শিক্ষার্থী ধর্ষণ মামলায় সাউথ ইস্টের সাদমান রিমান্ডে
জলবায়ুর ক্ষতি পুষিয়ে নিতে বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্রহণে ব্যর্থতার জন্য অর্থ ও রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবই দায়ী : প্রধানমন্ত্রী
চীন ও ভারতের সৈন্যরা ‘নতুন করে সীমান্ত সংঘর্ষে’ জড়িয়েছে
ক্যারিবীয়দের ‘বাংলাওয়াশ’
এবার রাজনীতিতে অভিষেক অভিনেত্রী কৌশানীর
সাইবার অপরাধীদের জন্য স্বর্ণখনি হয়ে উঠেছে গুগল ড্রাইভ
আইপিএলে নতুন ভূমিকায় সাঙ্গাকারা
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট চাইলেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা
চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী সালাউদ্দিনে বাসায় গুলি
চসিক নির্বাচন অত্যন্ত সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা হবে : সিইসি
কোভিড-১৯ টিকা : ব্রিটিশ চিকিৎসকদের সতর্কতা
ব্রিটিশ বাংলাদেশী চিকিৎসকদের নেতৃত্বে ব্রিটিশ হেলথ এলায়েন্স
তিন দফা দাবিতে ইবি ছাত্র ইউনিয়নের গণস্বাক্ষর
নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর আত্মত্যাগ : ’৭১-এ বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করেছে
সম্পাদক : মোল্লা জালাল | প্রধান সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ ৪২/১-ক সেগুনবাগিচা, ঢাকা-১০০০, বাংলাদেশ।  ফোন +৮৮ ০১৮১৯ ২৯৪৩২৩
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত এনএনবি.কম.বিডি
ই মেইল: [email protected], [email protected]